সাম্প্রতিক শিরোনাম

আকাশ যুদ্ধের এক লিজেণ্ড মার্কিন এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন জেট ফাইটার

সিরাজুর রহমানঃ এক বিংশ শতাব্দীতে এসেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিমান বাহিনীতে সক্রিয় থাকা যুদ্ধবিমান বা জেট ফাইটারের তালিকায় একেবারে শীর্ষে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সত্তরের দশকে সার্ভিসে আসা এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন জেট ফাইটার। আসলে বিশ্বের প্রায় ৩০টি দেশের বিমান বাহিনীতে এখনো পর্যন্ত নতুন এবং পুরাতন মিলিয়ে মোট ২,৭০০টি এর কাছাকাছি সিঙ্গেল ইঞ্জিনের এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন জেট ফাইটার সক্রিয় রয়েছে এবং ১৯৭৩ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত মোট ৪,৫৮৮টি বিভিন্ন ব্লক এবং সিরিজের এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন জেট ফাইটার তৈরি করা হয়েছে।

এফ-১৬ জেট ফাইটারের মেইন ম্যানুফ্যাকচারিং প্লান্ট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে এবং এর বর্তমান নির্মাতা মার্কিন লকহীড মার্টিন কর্পোরেশন। তবে মার্কিন লাইসেন্স এবং প্রযুক্তিগত সহায়তা নিয়ে তুরস্ক, বেলজিয়াম, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া এবং নেদারল্যাণ্ড এই ৫টি দেশ তাদের নিজস্ব ম্যানুফ্যাকচারিং বা এসেমব্লী প্লান্টে এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন প্রডাকশন লাইনে তৈরি করে থাকে।

অন্যদিকে তুরস্ক তার নিজস্ব প্রযুক্তি ব্যাবহার করে এফ-১৬ এর অধিকাংশ যন্ত্রাংশ নিজেই তৈরি করে এবং বর্তমানে পুরনো এফ-১৬ এর আধুনিকায়ন এবং আপগ্রেডেশনের কাজ নিজেই করতে সক্ষম। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনুমতি নিয়ে তুরস্ক মিশরের কাছে এর আগে মোট ৪০টি এফ-১৬ জেট ফাইটার বিক্রয় করে এবং পাকিস্তানের পুরনো এফ-১৬ জেট ফাইটার বহরের একটি বড় অংশ তুরস্কের সরকারি মালিকানাধীন তুর্কী এ্যারোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজ (টিএআই) নতুন প্রযুক্তি ইনস্টল এণ্ড আপগ্রেড করে দিয়েছে। তবে এফ-১৬ এর ইঞ্জিনসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ এখনো পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আনা হয়।

বর্তমানে মার্কিন লকহীড মার্কিন কর্পোরেশনের তৈরি চতুর্থ প্রজন্মের একেবারে সর্বশেষ সিরিজের এফ-১৬ ভাইপার ব্লক-৭০/৭২ এর সার্ভিস লাইফ টাইম ধরা হয়েছে ২০৭২ সাল পর্যন্ত। অর্থ্যাৎ এপিজি-৮৩ এইএসএ রাডার সমৃদ্ধ এফ-১৬ ব্লক ৭২ জেট ফাইটার আগামী চার দশক পর্যন্ত আকাশে রাজত্ব করে যেতে পারে তাতে সন্দেহের কোন অবকাশ থাকে না। আবার মার্কিন লকহীড মার্টিন ভারতের ভবিষ্যতের (এমআরসিএ) ১১৪টি জেট ফাইটারের আন্তর্জাতিক টেন্ডার প্রতিযোগিতায় জেতার জন্য এফ-১৬আইএন সুপার ভাইপার জেট ফাইটার প্রকাশ্যে আনে। যদিও ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এখনো পর্যন্ত এফ-১৬ ক্রয়ে কোন রকম আগ্রহ প্রকাশ করেনি।

এদিকে এফ-১৬ ব্লক-৬০ বিশেষভাবে তৈরি করা হয় মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের জন্য। এই ব্লক-৬০ তে আমিরাতের মোট বিনিয়োগ ৩.০০ বিলিয়ন ডলার এবং মার্কিন বিমান বাহিনী যে এফ-১৬ জেট ফাইটার রয়েছে তার চেয়ে আরো অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি করা হয় এফ-১৬ ব্লক-৬০ এর জেট ফাইটারগুলো। আর এই প্রডাকশন লাইনে তৈরিকৃত এফ-১৬ এর পুরোটাই ব্যাবহার করে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

তাছাড়া প্রাট এণ্ড হুইটনী এফ-১০০-পিডাব্লিউ-২২৯ কিংবা জেনারেল ইলেক্ট্রিক এফ-১১০-জিই-১২৯ আফটার টার্বোফ্যান ইঞ্জিন সমৃদ্ধ সর্বশেষ সিরিজের এফ-১৬ ব্লক ৭২ এর পার ইউনিট কস্ট আনুমানিক ১২০ মিলিয়ন ডলার (মিসাইল, ওয়েপন্স, ট্রেনিং, মেইনটেনেন্স প্যাকেজসহ) পর্যন্ত হতে পারে।

তাছাড়া বর্তমান যুগের আধুনিক এফ-১৬ এর অন্যতম অস্ত্র হলো মার্কিন রেইথন কোম্পানির ১৬০ কিলোমিটার রেঞ্জের এআইএম-১২০সি/ডি (বিভিআর) এডভান্স মিডিয়াম রেঞ্জ এয়ার টু এয়ার মিসাইল (এএমআরএএএম) এবং তার পাশাপাশি রয়েছে এ আই এম-৯ সাইডউইণ্ডার ও এআইএম-৭ স্প্যারো। আবার গ্রাউণ্ড এ্যাটাক ফ্যাসালিটির জন্য এজিএম-৮৮/১৫০ এয়ার টু সারফেস মিসাইল এবং এন্টিশীপ মিসাইল হিসেবে এজিএম-৮৪ হারপুন মিসাইল ব্যাবহার করে।

তবে সার্ভিসে আসার পর থেকে জানুয়ারি ২০২০ পর্যন্ত মোট ৬৭০টির কাছাকাছি এফ-১৬ জেট ফাইটার বিভিন্ন কমব্যাট এণ্ড নন-কমব্যাট মিশনে ধ্বংস হয়েছে। প্রডাকশন লাইন শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট ১৫টি ব্লকে এবং এ, বি, সি, ডি, ই এফ, আইএন সিরিজে ধাপে ধাপে আপগ্রেডেশন এবং নতুন প্রযুক্তির সমন্বয়ে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আরো অত্যাধুনিক এফ-১৬ভি বা ব্লক-৭০/৭২ পর্যায়ে এসে পৌছেছে। ১৯৭৩ সালে এফ-১৬ এর ম্যাসিভ প্রডাকশন লাইন শুরু থেকে আজ পর্যন্ত ১, ৫, ১০, ১৫, ২০, ২৫, ৩০, ৩২, ৪০, ৪২, ৫০, ৫২, ৬০, ৭০ এবং ৭২ ব্লকে তৈরি হয়েছে। যা আজ পর্যন্ত বিশ্বের কোন যুদ্ধবিমান এতগুলো ব্লকে এবং ভ্যারিয়েন্টে তৈরি করা সম্ভব হয়নি।

বিগত চার দশকে এফ-১৬ আনুমানিক মোট ৮৮টি শত্রু পক্ষের জেট ফাইটার, বোম্বার, হেলিকপ্টার এবং বিভিন্ন ধরণের এরিয়াল সিস্টেম সরাসরি এয়ার টু এয়ার মিসাইল হীটে ধ্বংস করার রেকর্ড রয়েছে। তাছাড়া ২০১৯ সালের ২৭শে ফেব্রুয়ারি ভারত পাকিস্তান আকাশ যুদ্ধে পাকিস্তান বিমান বাহিনীর একটি এফ-১৬ ভারতের মিগ-২১ শুট ডাউন করে।

মার্কিন এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন এ পর্যন্ত ১৯৯০-৯১ সালে উপসাগরীয় যুদ্ধ, ১৯৯৪-৯৫ সালে বসনিয়ায় সার্বিয়া সামরিক আগ্রাসন প্রতিরোধে, কসভো স্বাধীনতা যুদ্ধে, গ্রীক-তুর্কী সামরিক সংঘর্ষ ছাড়াও আফগানিস্থান, লিবিয়া, সিরিয়া, লেবানন এবং ইরাকের আকাশে ব্যাপকভাবে ব্যাবহার করা হয়েছে এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন জেট ফাইটার। তাছাড়া ইসরাইল কিন্তু প্রতি নিয়ত গাজা ও সিরিয়ায় সামরিক আগ্রাসন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ব্যাপকভাবে এফ-১৬ জেট ফাইটার ব্যাবহার করে যাচ্ছে।

মার্কিন এফ-১৬ ফাইটিং ফ্যালকন জেট ফাইটারের কমব্যাট এয়ার মিশনে কিলিং রেকর্ডের তালিকায় মিগ-২১, মিগ-২৩, মিগ-২৯, এফ-৪, এফ-১৬ এমআই-৮ ও এম আই-১৭ হেলিকপ্টার, এসইউ-২২, এসইউ-২৫, এসইউ-২৪, এটি-২৭ টুকনো, অরিয়ন-১০ ড্রোন ছাড়াও বেশকিছু ইউএই এণ্ড এরিয়্যাল সিস্টেম রয়েছে।

তাই সব দিক বিবেচনায় স্বল্প সামরিক বাজেটের দেশ হিসেবে বাংলাদেশের আকাশ নিরাপত্তা কার্যকরভাবে নিশ্চিত করার স্বার্থে এবং বিমান বাহিনীর সুপরিকল্পিত আধুনিকায়নের অংশ হিসেবে অদূর ভবিষ্যতে পর্যায়ক্রমে ৩৬টি থেকে ৪৮টি সর্বশেষ প্রযুক্তি নির্ভর এফ-১৬ভি ব্লক-৭০/৭২ সিরিজের জেট ফাইটার ক্রয়ের বিষয়টি আমাদের সম্মানিত সরকার ও প্রাণ প্রিয় বিমান বাহিনী আন্তরিকভাবে বিবেচনা করবেন বলে আশা করি।

সর্বশেষ

সৌদি ক্রাউন প্রিন্সকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর

বাংলাদেশ সফরের জন্য সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের কাছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণপত্র হস্তান্তর করেছেন রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী-----------------------------------------------------------সৌদি ক্রাউন প্রিন্স ও প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন সালমানের...

মায়ানমারের বিরুদ্ধে ইন্দোনেশিয়ায় মামলা

মিয়ানমারে সামরিক শাসকের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা গণহত্যা, জনবসতি আগুনে পুড়ানো সহ চলতি মাসে স্কুলে বিমান হামলা করে ১৪ শিশু হত্যা সহ গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ...

সামরিক সম্পর্ক জোরদারে তুরস্ক সফরে বাংলাদেশ সশস্ত্রবাহিনীর প্রতিনিধিদল

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ শামীম কামাল এর নেতৃত্বে Armed force war course 2022 এর ২৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল Overseas study tour (OST) এ তুরস্ক...

নিরাপত্তা পরিষদে মায়ানমার ইস্যুতে বাংলাদেশকে সমর্থন দেবে যুক্তরাজ্য

রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির লড়াইয়ের জেরে দুই দেশের সীমান্তের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিরসনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ। এরই ধারাবাহিকতায় যুক্তরাজ্য বলেছে,...