তুরস্কের নব্য উত্থান এবং ভবিষ্যত চ্যালেঞ্জ নিয়ে একটি সাম্প্রতিক বিশ্লেষণ!

উন-বিংশ শতাব্দীর বিশ্ব পরাশক্তি অটোমান সম্রাজ্যের দেশ তুরস্ক আবারো বিশ্বের বুকে সগৌরবে মাথা তুলে দাঁড়াতে শুরু করেছে। বর্তমানে বৈশ্বিক বেশ কিছু সমর নীতিতে বিশ্ব পরাশক্তিধর দেশগুলোর সাথে পাল্লা দিয়ে নিজস্ব সামরিক সক্ষমতা ও কূটনৈতিক দক্ষতা প্রকাশে কোন রকম দ্বিধা করছে না দেশটি। যদিও সাম্প্রতিক সময়ে তুরস্ক কিন্তু যথেষ্ঠ সামরিক ও অর্থনৈতিক সক্ষমতা এবং যোগ্যতা অর্জন না করেই বিশ্বের প্রথম সারির সুপার পাওয়ার দেশগুলোর সাথে বিপদজনকভাবে সামরিক উত্তেজনা এবং বিবাদে জড়িয়ে পড়ছে।

বিশেষ করে ভূমধ্যসাগরে বিতর্কিত সামুদ্রিক জলসীমায় তেল গ্যাস অনুসন্ধানকে কেন্দ্র করে তুরস্কের সাথে গ্রীস এবং সাইপ্রাসের বিরোধ চরম আকার ধারণ করেছে। আর উভয় পক্ষের অনড় অবস্থান ও নীতির কারণে বর্তমানে গ্রীসের সাথে ভয়াবহ যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। যা কিনা অদূর ভবিষ্যতে পরোক্ষভাবে হলেও সমাজ্যবাদী ইউরোপীয় দেশগুলোর বিরুদ্ধে প্রাণঘাতী যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার ভয়ঙ্কর হুমকীতে রয়েছে তুরস্ক। অথচ বর্তমান অবস্থার পরিপেক্ষিতে সামরিক সক্ষমতা ও যোগ্যতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কিংবা রাশিয়া তো দূরের কথা এমনকি ফ্রান্সের ধারে কাছেও নেই সুলতান খ্যাত এরদোয়ানের দেশ তুরস্ক।

তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কমব্যাট এণ্ড নন-কমব্যাট ড্রোন (ইউএভি), মিসাইল এণ্ড লাইট ডিফেন্স সিস্টেম নির্ভর প্রযুক্তিগত উন্নয়নে ব্যাপক সফলতা অর্জন করলেও তা কিন্তু সামগ্রিকভাবে তুরস্কের সামরিক সক্ষমতা এবং প্রযুক্তিগত উন্নয়নে বিশ্বের সুপার পাওয়ার দেশগুলোর পর্যায়ে পড়ে কিনা তা নিয়ে সন্দেহের যথেষ্ঠ অবকাশ থেকেই যাচ্ছে। তাছাড়া বর্তমানে তুরস্ক একাধারে বিশ্বের বেশ কিছু সক্রিয় রণাঙ্গনে যেমন সিরিয়া, লিবিয়া এবং আজারবাইজানে-আর্মেনিয়া যুদ্ধে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেছে। তুরস্ক নিজেও একটি ন্যাটো জোটভুক্ত দেশ হওয়া সত্ত্বেও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর সাথে বৈরিতা এবং চরম বিবাদ।

আসলে তুরস্কের যে সামরিক সক্ষমতা এবং অভিযান আজ থেকে আগামী ১০ বছর পর দেখানো উচিত ছিল, তারা কিন্তু তা বিবেচনায় না এনেই মধ্যম মাত্রায় সামরিক সক্ষমতা নিয়ে শক্তিশালী দেশগুলোর সাথে চরম মাত্রায় বিবাদে জড়িয়ে পড়ছে। অথচ সামরিক সক্ষমতার বিচারে ইউরোপের দেশ গ্রীস তুরস্ক অপেক্ষা অনেকটাই পিছিয়ে থাকলেও ভবিষ্যতে যে কোন যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে গ্রীসকে ন্যাটো জোটভুক্ত দেশগুলো সরাসরি সমর্থন দানের পাশাপাশি নির্বিচারে অস্ত্র সরবরাহে কোন রকম ত্রুটি রাখবে বলে মনে হয় না। আর এখনই কিন্তু ন্যাটো জোটভুক্ত দেশগুলো জোট বেঁধে গ্রীসকে পূরো মাত্রায় সমর্থন দিতে শুরু করে দিয়েছে।

এদিকে বিশেষ করে ইউরোপের খ্রিষ্টান সমাজ তুরস্কের সাথে গ্রীসের সামরিক বিবাদকে কিন্তু মধ্যযুগের ক্রুসেড যুদ্ধের সাথে বিবেচনা করে তা যে কোন ভাবেই হোক রণাঙ্গনে তুরস্ককে কার্যকরভাবে প্রতিহত করার নীতি ও কৌশল নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। তাই কারো উস্কানীতে কিংবা অতি মাত্রায় উৎসাহী হয়ে গ্রীস বা আর্মেনিয়ার সাথে যুদ্ধ জড়িয়ে পড়লে বর্তমান অবস্থার পরিপেক্ষিতে তুরস্ক বড় ধরণের সামরিক বিপর্যয়ের মুখে পড়ে যেতে পারে। এমনো হতে পারে যে, শত বর্ষব্যাপী চাপিয়ে দেয়া অন্যায় লুজিয়ান চুক্তির শৃঙ্খল বা বেড়া জাল থেকে বের হতে না হতেই প্রাশ্চাত্যের কূটকৌশলী শক্তিগুলো আবারো একত্র হয়ে তুরস্কের উপর আরো ভয়ঙ্কর এবং বিপদজনক নতুন কোন নিষেধাজ্ঞা বা বৈশ্বিক বাধা নিষেধ চাপিয়ে দেয়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে পরাজয়ের পর ১৯২৩ সালের ২৪শে জুলাই লুজিয়ান চুক্তির মাধ্যমে অতীতের উসমানীয় খেলাফতকে বিলুপ্তি করে তুরস্ককে পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ করে ফেলে ইউরোপীয় দেশগুলো এবং সুবিশাল খেলাফতের অঞ্চলগুলো নিজেদের মধ্যে ভাগ বাটোয়ারা করে নিতে কোন রকম কার্পন্য করেনি ফ্রান্স, স্পেন, যুক্তরাজ্য এবং তৎকালীন সভিয়েত ইউনিয়ন। যা কার্যকর হয় ৬ই আগস্ট ১৯২৪ সালে। আর ২০২৩ সালের ২৪শে জুলাই অতীতের এই অপমানজনক শত বর্ষব্যাপী লুজিয়ান চুক্তির শৃঙ্খল থেকে মুক্তি নিয়ে আবারো নতুন এক যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে তুরস্ক। তাই অনেকটা কৌশলগত কারণে এবং নিজ প্রয়োজনে তুরস্কের এরদোয়ান সরকারকে আপাতত স্পর্শকাতর একাধিক বৈশ্বিক ইস্যুতে নিশ্চুপ থাকা উচিত বলেই আমি মনে করি। এক্ষেত্রে ইউরোপীয় দেশগুলোর কাছ থেকে যতটা সম্ভব প্রযুক্তিগত জ্ঞান অর্জন করে হোক কিংবা চীনের মতো হাতিয়ে নিয়ে হলেও নিজস্ব সামরিক প্রযুক্তি ও শিল্পকে আরো আধুনিক এবং এক বিংশ শতাব্দীর নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আরো শক্তিশালী করে গড়ে তোলার দিকে যতটা সম্ভব মননিবেশ করাই এখন তুরস্কের মূলমন্ত্র হওয়া দরকার। পাশাপাশি কৌশলে নিউক্লিয়ার প্রযুক্তি অর্জন এবং বিশ্ব পরাশক্তিধর দেশগুলোর কাতারে নিজেকে নিয়ে যাওয়ার বিকল্প কিছু থাকতে পারে বলে মনে হয় না।

সর্বশেষ

বোয়ালখালীতে স্বাস্থ্য সহকারীদের ভাতা আত্মসাতের অভিযোগ

বোয়ালখালী প্রতিনিধি: জেলার বোয়ালখালীতে আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ তুলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ইপিআই) এসএম জিহাদ বাবলুর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স¦াস্থ্য...

কবিতা ‘কুশলাদি’ – নাঈমা খানম নিশাত

আসসালামু আলাইকুমভেঙ্গেছে কি মহারাজের ঘুম ??অনেক দিন হলো কথা হয় নাবিনিময় হয় না কুশলাদিখোঁজ খবর ও পাই না এখন,জানাও হয় না কেমন আছেন আপনি?কেমনিবা...

লালমনিরহাটে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ নিহত-১

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : জেলার হাতীবান্ধায় স্কুলে যাওয়ার সময় ট্রাকের ধাক্কায় ইমরান আলী (২১) ও শিশু আব্দুল্লাহ বিন নাঈম (৬) নিহত হয়েছেন। বুধবার সকালে উপজেলার...

লালমনিরহাটে ৭০ বোতল ফেন্সিডিলসহ পুলিশ কনস্টেবল গ্রেফতার

লালমনিরহাট প্রতিনিধি : লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে ৭০ বোতল ফেনসিডিলসহ হুমায়ুন কবির নামে একজন পুলিশ কনস্টেবলকে গ্রেফতার করেছে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। তিনি হাতিবান্ধা হাইওয়ে থানার...