সাম্প্রতিক শিরোনাম

মুরুং জনগোষ্ঠীর কৃষি ও ধর্ম চর্চা

সুজন চৌধুরী,বান্দরবানঃ মুরুং বা ম্রো একটি আদিবাসী জনগোষ্টী।বিশেষ করে বান্দরবান জেলার ৭ টি উপজেলার মধ্যে এদের আবাসস্তল।বিশেষ করে আলীকদম উপজেলায় দূর্গম পাহাড়ে এদের বসবাস।ম্রোরা,ম্রু ও মুরুং নামে পরিচিত।এরা অনেক পিছিয়ে পরা জনগোষ্ঠী। খোঁজ নিয়ে দেখা যাই এদের নিজস্ব ভাষা থাকলে ও নিজস্ব কোন বর্নমালা নেই।মুরুং সমাজে কয়েকটি পরিবার মিলে একটি গোত্র গঠিত হয়।ম্রো দের বংশ পরিচয় পিতৃতান্ত্রিক হয়ে থাকে।


কৃষিক্ষেত্রে পুরুষের তুলনায় মুরুং উপজাতি নারীরাই অনেক বেশি পরিশ্রমী। পরিবার ও ঘড় সামলে পাহাড়ে জুম চাষ, ফলের বাগান, অর্থনৈতিক উন্নয়নে তারা নিরলসভাবে হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে থাকে। পুরুষের চাইতে তারা অনেক কাজ করে।মুরুং নারীরা পুরুষদের মতো জুম ক্ষেতে কাজ করে। জুমে বিভিন্ন সবজি ও ধান রোপণ থেকে শুরু করে ঘরে তোলা পর্যন্ত হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে থাকে তারা।

মুরুং জনগোষ্ঠীর কৃষি ও ধর্ম চর্চা

কয়েক জন মুরুং নারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কাজ করতে তাদের কোনো সমস্যা নেই, জুমে নেমে ধান কেটে আহরণ করতে দীর্ঘ সময় পাহাড়ের গায়ে থাকতে কষ্ট হলেও এতে তাদের কোন বাধা নেই।

সংসারের চাহিদা মেটাতে জুমে মা-বাবা, স্বামী-ছেলের কাজে সহযোগিতা করতে তারা কাজ করে। পুরুষরা যাতে সংসারের অন্যান্য কাজ করার সুযোগ পায়, সেজন্যই মুরুং নারীরা জুমে চাষাবাদের মতো কষ্টকর কাজ করছেন।তারা পুরুষের মতো অধিক বোজা বহন করতে পারে।

ধর্ম- ম্রোদের আদি ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় ম্রোরা মূলতঃ প্রকৃতি পূজারী। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে এসব উপজেলায় মিশনারী কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে অধিকাংশ ম্রো খ্রিষ্ঠান ধর্মে ধর্মান্তরিত হচ্ছে। এদের মধ্যে কিছু অংশ বৌদ্ধ বা অন্যান্য ধর্মাবলম্বি হলেও খ্রিষ্ঠান ধর্মের পাশাপাশি ম্রোদের বড় একটি অংশ ক্রামা ধর্ম পালন করে আসছে। গো-হত্যা মরুংদের উল্লেখযোগ্য ধর্মীয় অনুষ্ঠান।

মুরুং জনগোষ্ঠীর কৃষি ও ধর্ম চর্চা

বান্দরবান জেলার সুয়ালক স্কুলের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র মেনলে ম্রো। পড়াশুনায় ততটা মনোযোগী না হলেও মেধায় ও বুদ্ধিতে মনলে একজন আদর্শ ছাত্র ছিলেন তিনি। ১৯৮৫ সুয়ালক স্কুলের ৫ম শ্রেণী ছাত্র। হঠাৎ একদিন কাউকে কিছু নাবলেই নিরুদ্দেশ হয়ে যান তিনি। দীর্ঘদিন তাকে কোথাও খোঁজাখুজি করে পাওয়া যাচ্ছিলনা। প্রায় ছয় মাস পর অর্থাৎ ১৯৮৬ সালে তিনি নিজ থেকেই ফিরে আসেন এলাকায়।


ক্রামা ধর্ম ও বর্ণমালা- ১৯৮৫ সালের কথা প্রায়। “রিয়াংখুতি” নামের একটি গ্রন্থ তুলে দিলেন মুরুংদের হাতে এবং এবং বললেন এটি মুরুংদের ধর্মগ্রস্থ। এই গ্রন্থটি দিয়ে তিনি “ক্রামা” নামের একটি ধর্মের ঘোষনা দিলেন। নিজেও শুরু করলেন ক্রামা ধর্মের প্রচারণা। ১৯৮৬ সালের কোন এক সময় তিনি পূনরায় নিরুদ্দেশ হয়ে যান। অদ্যবধি তিনি নিরুদ্দেশ রয়েছেন। তখন থেকে মুরুংদের বড় একটি অংশ ক্রামা ধর্মের অনুসরণ করে আসছে।উল্লেখ্য এই যে ম্রো দের কোন ধর্মগ্রন্ত নেই,কোন মন্দির ও কোন ধর্মগুরু নেই।

সর্বশেষ

আমরা অর্থ চাই না, আমার ভাইয়ের হত্যা কারীর শাস্তি চাই

সুজন চৌধুরী, আলীকদম (বান্দরবান): সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ছোটনশীলের ঘাতক জীপ চালককে দ্রত গ্রেপ্তার ও ন্যায় বিচারের দাবিতে বান্দরবানের আলীকদম মানববন্ধন করেছেন উপজেলা ছাত্রলীগ,বন্ধুমহল ও...

ইয়াবাসহ তিনজনকে আটক করল সেনাবাহিনী

আলীকদম(বান্দরবান) প্রতিনিধি: বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ৮ হাজার ইয়াবাসহ তিন জনকে আটক করেছে সেনাবাহিনী।শুক্রবার (১৫এপ্রিল) বিকাল সাড়ে ৪ টায় আলীকদম বাজারস্থ জিয়া বোডিং...

বিদেশ থেকে ফেন্সিডিল আমদানির অনুমতি চাইলেন আ. লীগ নেতা

ঈশাত জামান মুন্না, লালমনিরহাট : জেলা পুলিশের খোদ পুলিশ সুপারের সামনে ভারতীয় ফেন্সিডিল আমদানি ও নিজে সেবনের কথা বলে রীতিমত বিব্রত অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগ...

টানা ৪র্থ বার শ্রেষ্ঠ ওসির পুরস্কার পেলেন কালীগঞ্জ থানার ওসি- এটিএম গোলাম রসুল

ঈশাত জামান মুন্না, লালমনিরহাট: মঙ্গলবার জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে রংপুর রেঞ্জর শ্রেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তাদের পুরস্কারের ক্রেজ তুলে দেন এসপি আবিদা সুলতানা বিপিএম-পিপিএম ।জানা গেছে,...