সাম্প্রতিক শিরোনাম

কারাগারে বন্দি ফাঁসির আদেশপ্রাপ্ত কয়েদি রাজাকার মাহবুবুর রহমানের মৃত্যু

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ফাঁসির আদেশপ্রাপ্ত কয়েদি রাজাকার মাহবুবুর রহমানের মৃত্যু হয়েছে।

hiastock

শুক্রবার ভোর ৫টা ৪০ মিনিটে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান।

মাহবুবুর রহমান টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার সদরের বাইমহাটী গ্রামের প্রয়াত রাজাকার মৌলানা আব্দুল অদুদের ছেলে। তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর।

গুগল এডস

জানা গেছে, মুক্তিযুদ্ধের সময় কুমুদিনী ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট অব বেঙ্গল এর প্রতিষ্ঠাতা এশিয়াখ্যাত দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা, তার ছেলে ভবানী প্রসাদ সাহা রবি, রণদার ঘনিষ্ঠ সহচর গৌর গোপাল সাহা, রাখাল মতলব ও রণদা প্রসাদ সাহার দারোয়ানসহ সাতজনকে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হয় তার বিরুদ্ধে।

এ ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের সময় আসামি মির্জাপুরের ভারতেশ্বরী হোমসের আশপাশের বাইমহাটী, পোস্টকামুরী, মির্জাপুর, সরিষাদাইড়, আন্ধরা এলাকা, নারায়ণগঞ্জের খানপুরের কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ও তার আশপাশের এলাকা এবং টাঙ্গাইল সার্কিট হাউস এলাকায় গণহত্যা ও অগ্নিসংযোগসহ অপরাধে জড়িত।

মাহবুবুর রহমান একসময় জামায়াতে ইসলামীর সমর্থক ছিলেন। তিনি নির্দলীয়ভাবে মির্জাপুর সদর ইউনিয়ন ও পরে পৌরসভা নির্বাচনে তিনবার অংশগ্রহন করে পরাজিত হন।

২০১৬ সালের ১৮ এপ্রিল মাহবুবুরের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটির তদন্ত শুরুর পর ট্রাইব্যুনাল থেকে পরোয়ানা জারি হলে একই বছর ৭ নভেম্বর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২০১৮ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি এই আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল।

একই বছর ২৮ মার্চ রাজাকার মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর নির্দেশ দেন ট্রাইব্যুনাল। মামলাটি তদন্ত করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সহকারি পুলিশ সুপার মো. আতাউর রহমান।

২০১৯ সালের ২৭ জুন মুহবুবুর রহমানের ফাঁসির আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। সেই থেকেই তিনি কাশিমপুর কারাগারে বন্দি ছিলেন।

কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার শফিকুল ইসলাম খান সংবাদিকদের বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ফাঁসির আদেশপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন মাহবুবুর রহমান।

তিনি আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন। ভোর রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে পরীক্ষার পর মাহবুবুর রহমানকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

আইনী প্রক্রিয়া শেষে লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। মাহবুবুর রহমানের কয়েদি নম্বর ছিল ৪৪১২/এ।

মাহবুবুর রহমানের ছোট বোন অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম বলেন, আমার বাবা রাজাকার ছিলেন কিন্তু আমার ভাই মাহবুবুর রহমান রাজাকার ছিলেন না। আল্লাহ তাকে জুম্মার দিনে ভালোভাবে মৃত্যু দিয়েছেন।

সর্বশেষ

নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আজকের এই দিনে দেশে ফেরেন শেখ হাসিনা

দেশের গণতন্ত্রপ্রিয় মানুষের কাছে স্মরণীয় দিন আজ। ২০০৭ সালের ৭ই মে সেসময়ের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সব নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে চিকিৎসা শেষে দেশে...

বদর যুদ্ধের আদলে সংসদ ভবনে জংগি হামলা চালানোর পরিকল্পনা ভেস্তে গেলো!

উগ্রপন্থী ইসলামি বক্তা আলি হাসান উসামার নির্দেশে সংসদ ভবনে তলোয়ার নিয়ে হামলার পরিকল্পনা করেছিল আনসার আল ইসলামের সক্রিয় সদস্য আল সাকিব। এই হামলার জন্য...

ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর রিকশাচালককে মারধরকারী গ্রেপ্তার

পুরান ঢাকার বংশালে একজন রিকশাচালককে মারধরের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।মঙ্গলবার পুলিশের মি‌ডিয়া অ্যান্ড পাব‌লিক রি‌লেশনস উইংয়ের পাঠানো এক সংবাদ...

অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের র‌্যাংক ব্যাজ পরিধান

'বড় পদে পদোন্নতি মানে বাড়তি দায়িত্ব। যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে দেশ ও জনগণের কল্যাণে সবসময় সচেষ্ট থাকতে হবে'।ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ, বাংলাদেশ ড. বেনজীর...