সাম্প্রতিক শিরোনাম

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শোষণ ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান স্পিকারের

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতিকে গভীরভাবে ভালবাসতেন বলেই অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক মুক্তির জন্য আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। অন্যায়ের কাছে কখনোই মাথা নত করেননি এই মহান নেতা।

hiastock

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন অবিসংবাদিত নেতা, যিনি সারা জীবন নির্লোভ ও নির্মোহ থেকে বাংলার মানুষের অধিকার আদায়ের প্রশ্নে ছিলেন আপোষহীন। তাই ২৫ মার্চের কালো রাতেও অদম্য সাহসিকতার সাথে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। পদ-পদবীর লোভ না করে বৃহত্তর ল্যকে সামনে রেখে তিনি এগিয়ে গেছেন।

সোমবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলে আয়োজিত আলোচনা সভা, দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

গুগল এডস

সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অংশ নেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, প্রধান হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, হুইপ ইকবালুর রহিম, হুইপ আতিউর রহমান আতিক, উপ-সচিব এস এম মঞ্জুর, উপ-সচিব এ কে এম জি কিবরিয়া মজুমদার, সিনিয়র কমিটি অফিসার ফারহানা বেগম, সিনিয়র সহকারী সচিব আব্দুল মুনিম, সহকারী সচিব আসিফ হাসান এবং কর্মচারী আতর আলী ও আবুল খায়ের উজ্জ্বল।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন গণসংযোগ শাখার পরিচালক তারিক মাহমুদ ও উপ-পরিচালক সামিয়া রুবাইয়াত হোসেইন।

সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গঠনই ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একমাত্র ল্য। সাধারণ মানুষের জীবনধারণ উপযোগী শোষণ ও বঞ্চনামুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা ছিল তাঁর ল্য।

দর্শন ও আদর্শকে ধারণ করে তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে যেতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অকান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে দেশ গঠনের কাজে যেভাবে আত্মনিয়োগ করেছেন তাতে আমাদের সকলকে সহযোগিতা করতে হবে।

সর্বশেষ খবর

জনপ্রিয় খবর

hiastock