সাম্প্রতিক শিরোনাম

বীরগঞ্জে ডায়াবেটিস এন্ড ফুট কেয়ার সেন্টারের উদ্বোধন

দিনাজপুর প্রতিনিধি: ডায়বেটিস রোগীদের কথা চিন্তা করে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায়
‘বীরগঞ্জ ডায়াবেটিস এন্ড ফুট কেয়ার সেন্টার’
উদ্বোধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমবার বিকেলে দিনাজপুর থেকে বীরগঞ্জ উপজেলায় প্রবেশের পথে ডায়বেটিস সেন্টার এন্ড ফুট কেয়ার সেন্টারের উদ্বোধন করা হয়।

hiastock

প্রখ্যাত ডায়াবেটিস ও হরমোন রোগ বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. লাইক আহমেদ খান এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর-১ আসনের এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল, বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাটী, সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমেদ ভূঞা, জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বিপিএম, পিপিএম (বার), বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আমিনুল ইসলাম, কাহারোল উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক সরকার, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ বকসী বাচ্চু, দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর জিএম হরেন্দ্র নাথ বর্মণ, কাহারোল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মনিরুল হাসান।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন বীরগঞ্জ ডায়াবেটিস এন্ড ফুট কেয়ার সেন্টার এর চেয়ারম্যান ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ ডা. ডি.সি রায়।

গুগল এডস

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে ফলক উন্মোচন, ফেস্টুন ও পায়রা অবমুক্তকরণ এবং ফিতা কেটে সেন্টারের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি এমপি গোপাল। এরপর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, পবিত্র গীতা পাঠ, মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে আলোচনা সভা কার্যক্রম শুরু করা হয়।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তেব্যে এমপি গোপাল বলেন, ‘বাংলাদেশ এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতি ভারত বন্ধুত্বের একটি উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। বাঙালি এবং বাঙালিরা ভারতের প্রতি বন্ধুত্বের ভূমিকা সবসময়ের জন্য অব্যাহত রাখবে। কারণ ভারত-বাংলাদেশের বন্ধুত্ব¡ রক্তের বন্ধনে আবদ্ধ। আর রক্তের বন্ধনে যে বন্ধুত্ব আবদ্ধ তা অন্য কোন কিছুর মাপকাঠিতে বিশ্লেষণ করা যাবে না। যেকোনো সংকটকালীন মুহূর্তে ভারত যেভাবে বাংলাদেশের মানুষের পাশে অবস্থান নিয়েছে বাংলাদেশও তাদের পাশে সেই অবস্থান গ্রহণ করবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ভারতীয় সহকারি হাই কমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাট্টি বলেন,
‘ভারত বাংলাদেশের সম্পর্ক খুব ঘনিষ্ঠ। আগামীতে এই সম্পর্ক আরো গভীরতর হবে। আমাদের দুই দেশের মধ্যে ব্যবসা বাণিজ্য রয়েছে। ভারতে বিদেশ থেকে যে পরিমাণ লোক যায়, তার মধ্যে বাংলাদেশর মানুষের সংখ্যা বেশি। মানুষে মানুষে যে সম্পর্ক তা আমাদের দুই দেশের মধ্যে ব্যাপকভাবে রয়েছে। এক কথায় বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক সোনলী অধ্যায়।‘

স্বাগত বক্তব্যে ডা. ডি.সি রায় বলেন, ‘আমার মূল লক্ষ্য হলো, তৃণমুল পর্যায়ে ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত স্বল্পমূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা। যাতে একজন রোগী সুলভে আধুনিক চিকিৎসা পায়। আর আমার আরেকটি লক্ষ্য হচ্ছে, বেশি বেশি সচেতনতামূলক পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের পা কাটার হাড় কমিয়ে আনা। সর্বপরি উত্তরবঙ্গে ডায়াবেটিস সংক্রান্ত জটিলতায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের যুগোপযোগী চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ডায়াবেটিস স্ক্রিনিং টেস্ট ও ব্লাড ডোনেশন কার্যক্রমন পরিচালনা করা হয়।

সর্বশেষ খবর

জনপ্রিয় খবর

hiastock