স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা এমপিওভুক্তির চেষ্টা চলছে: শিক্ষামন্ত্রী

সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আমরা কারিগরি শিক্ষা বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ নিয়েছি। প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নবম-দশম শ্রেণিতে অন্তত দুটি ট্রেড বাধ্যতামূলক করতে আমরা কাজ করছি। আশা করেছিলাম, ২০২১ সাল থেকেই তা চালু করতে পারব। কিন্তু করোনার কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না।

তবে বর্তমান পরিস্থিতি দীর্ঘস্থায়ী না হলে আশা করছি ২০২২ সাল থেকে সব স্কুল ও মাদরাসায় কারিগরি শিক্ষা চালু করতে পারব। এ ছাড়া প্রতিটি উপজেলায় নতুন করে একটি আধুনিক মানের কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন করা হচ্ছে।

সোমবার এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশের (ইরাব) আয়োজিত কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা: এসডিজি অর্জনে করণীয় শীর্ষক ভার্চুয়াল সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

উপস্থিত ছিলেন কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আবুল কাশেম, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. মোরাদ হোসেন মোল্ল্যা প্রমুখ।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি শিক্ষকদের বিষয়ে আমরা অবগত আছি। তাদের এমপিওভুক্তির ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি আছে। মাদরাসাগুলো এমপিওভুক্তির জন্য প্রায় ৩০০ কোটি টাকা প্রয়োজন।

আমরা সেই টাকা বরাদ্দ চেয়েছি। তাদের জন্য কাজ চলমান আছে। আমরা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা এমপিওভুক্তির চেষ্টা করছি।

কারিগরির প্রসারে প্রয়োজন মান উন্নয়ন। আমরা শিক্ষক নিয়োগের বড় উদ্যোগ নিয়েছি। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। মানসম্মত ল্যাবরেটরি, তাতে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ইত্যাদি থাকতে হবে।

এই শিক্ষায় শিল্পপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংযোগ থাকা খুব জরুরি। যা নিয়েও সরকার কাজ করছে।

শর্ট কোর্স নিয়ে অনেকেই অনেক কথা বলেন। কিন্তু আমাদের এই শিক্ষাতে যেতেই হবে। কারণ আজকে একটা ডিগ্রি নিয়ে যে কাজে যাবে, তার কিন্তু বারবার ডিগ্রি করতে আসার সুযোগ নেই। কাজেই ডিগ্রির কোর্সটাকে ভেঙে ভেঙে ছোট মডিউল করতে হবে। যার যে মডিউল প্রয়োজন, সেটাতে সে শর্ট কোর্সে শিক্ষা অর্জন করে ডিগ্রি নেবে।

শিক্ষামন্ত্রী উল্লেখ করেন, কারিগরি শিক্ষাগ্রহণের পর কোনো শিক্ষার্থী বেকার থাকছে না। তাদের কর্মসংস্থান হচ্ছে। বরং যারা অন্যান্য শিক্ষায় আছে, তারা সনদধারী হয়েও কর্মসংস্থান হচ্ছে না। আমাদের এদিকেও মনোযোগ দিতে হবে সবাইকে চাকরি খুঁজলে হবে না।

উদ্যোক্তা হতে হবে। অনেককেই নিজের কর্মসংস্থান নিজেকেই সৃষ্টি করতে হবে। শিক্ষার্থীদের হাতে-কলমে দক্ষ হয়ে গড়ে উঠতে হবে। আগামী দিনে এর বিকল্প কোনো পথ নেই। কাজেই সেই মনোভাবটিও আমাদের গড়তে হবে।

মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান বলেন, যদি শিক্ষার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীর অর্থনৈতিক সক্ষমতা বাড়ে, সামাজিক দায়বদ্ধতা বাড়ে এবং নৈতিকভাবে আলোকিত হয়, তবে সে ধরনের শিক্ষাকেই আমরা মানসম্মত শিক্ষা বলতে পারি।

কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার মূল বিষয় হলো, কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে ব্যক্তির ও জাতীয় উন্নয়ন। তাই কর্মমুখী শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য সবাইকে কাজ করতে হবে।

টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আব্দুল কাশেম বলেন, কারিগরি শিক্ষায় যদি মানসম্পন্ন শিক্ষা দেওয়া সম্ভব হয়, সেটা যে স্তরেই হোক না কেন, তার কর্মসংস্থানের অভাব হয় না।

কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মোরাদ হোসেন মোল্ল্যা বলেন, প্রতিবছর ২৩-২৮ লাখ লোক শ্রমবাজারে যুক্ত হচ্ছে। শিল্পপ্রতিষ্ঠানের চাহিদা অনুযায়ী এই জনশক্তিকে কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ করে তুলতে হবে।

কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষার উন্নয়নে এই সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপে শিক্ষা ও শিক্ষকসমাজ উপকৃত হচ্ছে।

মাওলানা শাব্বির আহমদ মোমতাজী বলেন, সরকার গত এক যুগে মাদরাসা শিক্ষার ব্যাপক উন্নয়ন করেছে। ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেছে। তবে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করা খুব জরুরি।

মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কায়সার আহমেদ মাদরাসা শিক্ষার মান উন্নয়নে সবাইকে সমান সুযোগ, শিক্ষকদের জীবনমানের উন্নয়ন, বৃত্তি সম্প্রসারণ, জীবনব্যাপী শিক্ষা লাভের সুযোগ এবং মাদরাসায় বাণিজ্য বিভাগ চালু করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

ইরাব সভাপতি মুসতাক আহমদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হকের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য দেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু, জমিয়াতুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব মাওলানা শাব্বির আহমদ মমতাজী, টেকনিক্যাল এডুকেশন কনসোর্টিয়াম বাংলাদেশের সভাপতি প্রকৌশলী আব্দুল আজিজ, কারিগরি শিক্ষা কল্যাণ সমিতির সভাপতি মো. নাজমুল ইসলাম, স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মাওলানা জয়নুল আবেদীন জেহাদি। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সাব্বির নেওয়াজ ও মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন শরীফুল আলম সুমন।

সর্বশেষ

সামরিক সম্পর্ক জোরদারে তুরস্ক সফরে বাংলাদেশ সশস্ত্রবাহিনীর প্রতিনিধিদল

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ শামীম কামাল এর নেতৃত্বে Armed force war course 2022 এর ২৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল Overseas study tour (OST) এ তুরস্ক...

নিরাপত্তা পরিষদে মায়ানমার ইস্যুতে বাংলাদেশকে সমর্থন দেবে যুক্তরাজ্য

রাখাইন রাজ্যে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির লড়াইয়ের জেরে দুই দেশের সীমান্তের উদ্ভূত পরিস্থিতি নিরসনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চেয়েছে বাংলাদেশ। এরই ধারাবাহিকতায় যুক্তরাজ্য বলেছে,...

কাউকে কাউন্ট করি না, আমরা সবসময় প্রস্তুত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশের ভূখণ্ডে বারবার মর্টারের গোলা পড়ার ঘটনার প্রেক্ষাপটে একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন...

মেয়েদের জন্য দাঁড়িয়ে পথে পথে চেনা মুখগুলি

মঙ্গলবারেই জানানো হয় বিমানবন্দর থেকে বনানী- মহাখালী- বিজয় সরণী হয়ে সাত রাস্তা-মগবাজার হয়ে বাফুফে যাবে মেয়েরা। সেই অনুযায়ী যার যার মতো করে দাঁড়িয়েছিলেন সবাই।...